অনলাইনে ক্যারিয়ারের সম্ভাবনা ও ঘরে বসেই উপার্জন।

অনলাইনে ক্যারিয়ারের সম্ভাবনা ও ঘরে বসেই উপার্জন। অমিত সম্ভাবনাময় তথ্যপ্রযুক্তি শিল্পে বাংলাদেশের প্রবেশ বেশি দিনের না হলেও তারুণ্যময় যুব সমাজ নিজেদের মেধা এবং পরিশ্রমের যথাযথ মূল্যায়নের মাধ্যমে ইতিমধ্যেই নিজেদের পরিণত করেছে যোগ্য ব্যক্তিরূপে। বাংলাদেশের পরিপেক্ষিতে কর্মক্ষেত্রে পদের বিপরীতে চাকরি প্রার্থীর সংখ্যা বেশি থাকার সম্ভবনা থাকা সত্বেও অনেকের পক্ষেই পছন্দনীয় চাকরি লাভ করা অনেকক্ষেত্রেই সম্ভব হয়ে উঠে না। অনলাইনভিত্তিক কাজের মাধ্যমে সুযোগ রয়েছে ঘরে বসেই ইন্টারনেটের মাধ্যমে অর্থ লাভ করার। তারুণ্যময় যুব সমাজের অনেকেই বর্তমানে ইন্টারনেটের মাধ্যমে কাজসমূহ করার মাধ্যমে অর্থ আয় করে চলেছে। তথ্যপ্রযুক্তির সুফল ব্যবহারের মাধ্যমে ক্যারিয়ার গঠনের নানাবিধ দিকসমূহ এখন আমরা দেখবো। (অনলাইনে ক্যারিয়ারের সম্ভাবনা ও ঘরে বসেই উপার্জন।) উন্নত বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রয়োজনের তুলনায় দক্ষ জনগোষ্ঠির স্বল্পতার কারণে তারা তাদের প্রয়োজনীয় কাজসমূহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ হতে স্বল্প খরচে করে থাকে। এই ধারাবাহিকতায়  তথ্যপ্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে বিশ্বের অনেক দেশই অন্য দেশের কাজসমূহ অনলাইনের মাধ্যমে করে থাকে। মূলত উচ্চপারিশ্রমিকের কারণে উন্নত বিশ্বের বিভিন্ন দেশের কাজসমূহ স্বল্প আয়ের দেশসমূহ হতে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে প্রদান করা হয়। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশে আউটসোর্সিভিত্তিক বিভিন্ন কাজের পরিধি বৃদ্ধি পাওয়ার পাশাপাশি এ খাতে বিপুল সংখ্যক তথ্যপ্রযুক্তি জ্ঞানসম্পন্ন ব্যক্তিদের কবিয়ার গঠনের সুযোগ তৈরি হয়েছে। ইতিপূর্বে বাংলাদেশে বিগত বছরগুলোতে আউটসোর্সিং ভিত্তিক কাজসমূহ মূলত প্রাতিষ্ঠানিকভাবে করা হয়ে থাকলেও ইন্টারনেটের বদৌলতে সুযোগ বর্তমানে তৈরি হয়েছে ব্যক্তিগত উদ্যোগে অনলাইনভিত্তিক কাজসমূহ করার মাধ্যমে নিজের ক্যারিয়ার গঠনের। এ পেশার সবচেয়ে আকর্ষণীয় দিক হচ্ছে স্বাধীনভাবে কাজ করার পাশাপাশি রয়েছে তুলনামূলকভাবে ভাল পারিশ্রমিক। অনেকের মধ্যেই ধারণা রয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে অর্থ আয় করতে হলে তাকে কম্পিইটার সায়েন্স ইন্জিনিয়ার অথবা অথবা স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করতে হবে। কিন্তু অনলাইনে এমনও অনেক কাজের সুয়োগ রয়েছে যাতে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয়। অনলাইন ভিত্তিক বিভিন্ন ধরনের কাজ করার মাধ্যমে নিজের ক্যারিয়ার গঠনের জন্য প্রয়োজন কম্পিউটার এবং দ্রুতগতির ইন্টারনেট সংযোগ । আর এক্ষেত্রে বাংলাদেশে প্রধান সুযোগ হচ্ছে স্বল্পমূল্যের দক্ষ তরুণ সমাজ। আমাদের দেশে সাম্প্রতিক সময়ে অনলাইনভিত্তিক কাজসমূহ ইন্টারনেটে করার মাধ্যমে যে সকল কাজসমূহ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে তার  মধ্যে রয়েছে আউটসোর্সিং, ডাটা এন্টি, অনলাইন সার্ভে, পিপিসি, পিটিএস, পিটিসি, এফিলিয়েটসসহ ওয়েব পেইজভিত্তিক বিভিন্ন কাজসমূহ। (অনলাইনে ক্যারিয়ারের সম্ভাবনা ও ঘরে বসেই উপার্জন।) আউটসোর্সিং: উন্নত বিশ্বের কোনো প্রতিষ্ঠানের কাজসমূহ যখন অনলাইনের মাধ্যমে কোনো প্রতিষ্ঠান অথবা ব্যক্তির মাধ্যমে করানো হয়ে থাকে তাকেই মূলত আউটসোর্সিং হিসেবে অভিহিত করা হয়ে থাকে । তুলনামূলকভাবে পারিশ্রমিকের মূল্য কম থাকার কারণে উন্নয়নশীল বিভিন্ন দেশের ন্যায় বাংলাদেশ এক্ষেত্রে আউটসোর্সিং শিল্পে দ্রুত উন্নতি করে চলেছে । শুধু প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে নয় ব্যক্তিগতভাবেই আউটসোর্সিং কাজ হয়ে থাকে। মূলত ইন্টারনেটের বিভিন্ন ওয়েব সাইটে আউটসোর্সিংয়ের কাজসমূহ প্রদান করা হয়ে থাকে । জনপিয় আউটসোর্সিংভিত্তিক সাইট www.rentacoder.com এর মাধ্যমে আউটসো্র্সিংয়ের কাজ পাওয়া যায় ।এরকম শত শত ওয়েবসাইট আছে।আপনার খোঁজে দেখতে পারেন।। এ ওয়েব সাইটে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তাদের কাজসমূহ প্রদানের লক্ষ্যে তথ্য প্রদান করে থাকে। প্রাথমিকভাবে এই সাইট হতে কাজ পেতে হলে সদস্য হতে হবে এবং মাধ্যমে নিজের যোগ্যতা রয়েছে সে তালিকা অনুযায়ী তাকে কাজের আবেদন করতে হবে। মূলত সর্বনিম অর্থের বিনিময়ে যে ব্যক্তি কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করে তাকেই আউটসোর্সিং কাজ প্রদান করা হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে আপনার যদি সংশ্লিষ্ট কাজের যোগ্যতা এবং অভিজ্ঞতা থাকে তবে আপনি প্রাতিষ্ঠানিক অথবা ঘরে বসেও কাজ করার মাধ্যমে অর্থ আয় করতে সক্ষম হবেন। আর এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে আকর্ষণীয় দিক হচ্ছে, পারিশ্রমিকের মূল্য নির্ধারিত হয় ডলারে টাকায় নয়। ফলে আয়ের পরিমাণও বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাজের বিপরীতে প্রাপ্ত আয়ের তুলনায় বেশি হয়ে থাকে নিঃসন্দেহে।