রাজশাহীতে জনপ্রতি ফিতরা ৫৫ টাকা

রাজশাহীতে জনপ্রতি ফিতরা ৫৫ টাকা। ফিতরা নির্ধারণ উপলক্ষে বুধবার (৬ মে) সকালে রাজশাহীর জামিয়া ইসলামিয়া শাহ মখদুম (রহ.) মাদ্রাসায় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুফতি মাওলানা মো. শাহাদত আলী।

বিকেলে রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী জামিয়া ইসলামিয়া শাহ মখদুম (রহ.) মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুফতি মাওলানা শাহাদত আলী এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, নিজ এলাকার বাজারমূল্য ধরে ১ কেজি ৬৫০ গ্রাম আটা, ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম কিসমিস বা খেজুরের দাম হিসেবে ফিতরা আদায় করা যাবে। দাতার সুবিধায় প্রতি বছরই এভাবে সর্বনিম্ন ও সর্বোচ্চ ফিতরা নির্ধারণ করা হয়।

করোনা ভাইরাসের কারণে সভায় বিভিন্ন মসজিদের ইমাম, মাদ্রাসার শিক্ষক, ওলামায়ে কেরাম, মুফতি, মুহাদ্দিস, সাংবাদিক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সঙ্গে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মতামত গ্রহণ করে রাজশাহী ও পার্ব্ বর্তী এলাকার জন্য এবছর ফিতরা নির্ধারণ করা হয় ৫৫ টাকা।

সভায় বলা হয়, রাজশাহীতে মূল্য ৩৩ টাকা কেজি ধরে ১ কেজি ৬৫০ গ্রাম আটার দাম ৫৪ টাকা ৪৫ পয়সা অর্থাৎ ৫৫ টাকা ফিতরা নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে খেজুর ও কিসমিসের ক্ষেত্রে ৩ কেজি ৩শ গ্রামের দাম দিয়েও ফিতরা আদায় করা যাবে।

যাদের সামর্থ্য রয়েছে তারা রাজশাহীর বাজারে কিসমিস ৪শ টাকা কেজি হিসেবে ৩ কেজি ৩শ গ্রামের মূল্য ১ হাজার ৩২০ টাকা এবং খেজুর ৩শ টাকা কেজি হিসেবে ৩ কেজি ৩শ গ্রামের মূল্য ৯৯০ টাকা দিয়েও ফিতরা আদায় করতে পারবেন।

(রাজশাহীতে জনপ্রতি ফিতরা ৫৫ টাকা রাজশাহীতে জনপ্রতি ফিতরা ৫৫ টাকা রাজশাহীতে জনপ্রতি ফিতরা ৫৫ টাকা )

বাংলাদেশ সময়: ১৮২৫ ঘণ্টা, মে ০৬, ২০২০

ফিতরা সমন্ধে কিছু হাদীসঃ
ফিতরা বা ফেতরা(فطرة) আরবী শব্দ, যা ইসলামে যাকাতুল ফিতর (ফিতরের যাকাত) বা সাদাকাতুল ফিতর (ফিতরের সদকা) নামে পরিচিত। ফিতর বা ফাতুর বলতে সকালের খাদ্যদ্রব্য বোঝানো হয় যা দ্বারা রোজাদারগণ রোজা ভঙ্গ করেন।

[১] যাকাতুল ফিতর বলা হয় ঈদুল ফিতর উপলক্ষে গরীব দুঃস্থদের মাঝে রোজাদারদের বিতরণ করা দানকে। রোজা বা উপবাস পালনের পর সন্ধ্যায় ইফতার বা সকালের খাদ্য গ্রহণ করা হয়। সেজন্য রমজান মাস শেষে এই দানকে যাকাতুল ফিতর বা সকাল‌ের আহারের যাকাত বলা হয়।

[২] নারী-পুরুষ, স্বাধীন-পরাধীন, শিশু-বৃদ্ধ, ছোট-বড় সকল মুসলিমের জন্য ফিতরা প্রদান করা ওয়াজিব। ইবনে উমর থেকে জানা যায়ঃ

فرض رسول الله صلى الله عليه وسلم-زكاة الفطر صاعاً من تمر أو صاعاً من شعير، على الذكر والأنثى والصغير والكبير والحر والعبد من المسلمين، وأمر أن تؤدى قبل خروج الناس للصلاة” متفق عليه রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রত্যেক স্বাধীন-ক্রতদাস, নারী-পুরুষ, ছোট-বড় মুসলমানের যাকাতুল ফিতর ফরজ করেছেন এক ‘সা’ পরিমাণ খেজুর বা যব ফরজ করেছেন। তিনি লোকদের ঈদের নামাযে বের হওয়ার পূর্বেই তা আদায় করার আদেশ দিয়েছেন।

কে ফিতরা দেবে

ছাদাক্বাতুল ফিতর মুসলমান নারী-পুরুষ, ছোট-বড়, সকলের জন্য আদায় করা ফরয। এ মর্মে হাদীছে এসেছে,

عَنِ ابْنِ عُمَرَ قَالَ فَرَضَ رَسُوْلُ اللهِ صلى الله عليه وسلم زَكَاةَ الْفِطْرِ صَاعًا مِنْ تَمَرٍ أَوْ صَاعًا مِنْ شَعِيْرٍ عَلَى الْحُرِّ وَالْعَبْدِ وَالذَّكَرِ وَالأُنْثَى وَالصَّغِيْرِ وَالْكَبِيْرِ مِنَ الْمُسْلِمِيْنَ وَأَمَرَ بِهَا أَنْ تُؤَدَّى قَبْلَ خُرُوْجِ النَّاسِ إِلَى الصَّلاَةِ.

ইবনে ওমর বলেন, রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) স্বীয় উম্মতের ক্রীতদাস ও স্বাধীন, নারী ও পুরুষ, ছোট ও বড় সকলের উপর মাথা পিছু এক ছা’ পরিমাণ খেজুর বা যব যাকাতুল ফিৎর হিসাবে ফরজ করেছেন এবং তা ঈদগাহের উদ্দেশ্যে বের হওয়ার পূর্বেই আদায় করার নির্দেশ দিয়েছেন’।

ঈদের দিন সকালেও যদি কেউ মৃত্যুবরণ করেন, তার জন্য ফিৎরা আদায় করা ফরয নয়। আবার ঈদের দিন সকালে কোন বাচ্চা ভূমিষ্ঠ হ’লে তার পক্ষ থেকে ফিৎরা আদায় করা ফরয।

ছাদাক্বাতুল ফিতর হ’ল জানের ছাদাক্বা, মালের নয়। বিধায় জীবিত সকল মুসলিমের জানের ছাদাক্বা আদায় করা ওয়াজিব। কোন ব্যক্তি ছিয়াম পালনে সক্ষম না হ’লেও তার জন্য ফিৎরা ফরয।

কে ফিতরা পাবে

গরীব, দুঃস্থ, অসহায়, অভাবগ্রস্থ ব্যক্তিকে ফিতরা প্রদান করা যাবে। কাজের লোককে ফিতরা দেয়াঃ

বেতনভুক্ত কাজের ব্যক্তির পক্ষে ফিতরা প্রদান করা মালিকের উপর আবশ্যক নয়। তবে মালিক ইচ্ছে করলে কাজের লোককে ফিতরা প্রদান করতে পারবেন। তবে তিনি বেতন বা পারিশ্রমিক হিসেবে ফিতরা প্রদান করতে পারবেন না।

যা দিয়ে ফিতরা দেয়া যাবে

আবু সাঈদ খুদরী (রাযিঃ) বলেন: “আমরা-নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের যুগে যাকাতুল ফিতর বের করতাম এক সা খাদ্য দ্রব্য কিংবা এক সা যব কিংবা এক সা খেজুর কিংবা এক সা পনীর কিংবা এক সা কিশমিশ।এই হাদীসে খেজুর ও যব ছাড়া আরও যে কয়েকটি বস্তুর নাম পাওয়া গেল তা হল: কিশমিশ, পনীর এবং খাদ্য দ্রব্য। উল্লেখ থাকে যে, নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর বিগত হওয়ার পরে মুআবীয়া (রাযিঃ)- এর খেলাফতে অনেকে গম দ্বারাও ফিতরা দিতেন।

শিক্ষাবিষয়ক বিভিন্ন লেখা দেখতে এখানে ক্লিক করুন।
যেকোন প্রশ্ন করতে ও জানাতে এখানে ক্লিক করুন।
আমাদের ফেসবুক পেজ দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

our Youtube link where given education video for primary

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *