সহজ উপায়ে অনলাইনে টাকা আয় এই বিষয়গুলো জানা একান্ত দরকার।

আউটসোর্সিং কি কি ধরনের কাজ পাওয়া যায়?

সহজ উপায়ে অনলাইনে টাকা আয় করতে চাইলে এই বিষয়গুলো জানা একান্ত দরকার। (ভিডিওসহ) প্রিয় পাঠক অনলাইনে বা আউটসোসিং প্রশিক্ষণ দিতে গিয়ে বেশ কিছু পোষ্ট আপলোড করতে পারিনি। তবে আজ আমি একটি গুরত্বপুর্ণ পোষ্ট আপনাদের সামনে তুলে ধরলাম।পোষ্টটি কেন গুরত্বপুর্ণ তা আমি প্রশিক্ষণ দিতে গিয়ে বুঝলাম।যাহোক আসল কথায় আসা যাক। আমার আলোচ্য “বিষয় সহজ উপায়ে অনলাইনে টাকা আয় করতে চাইলে এই বিষয়গুলো জানা একান্ত দরকা ।” (ভিডিওসহ) ( সহজ উপায়ে অনলাইনে টাকা আয় এই বিষয়গুলো জানা একান্ত দরকার।)

আউটসোর্সিং

আউটসোর্সিং নিয়ে বর্তমানে আমাদের বাংলাদেশে অনেক বেশি লেখালেখি হচ্ছে। খুব তাড়াতাড়ি ধনী অথবা রাতারাতি নিজেকে একটু আলাদা করার  আশা নিয়ে বিভিন্ন মন ভুলানো কথা ও রকমারি বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে মানুষকে সবসময় আকৃষ্ট করার আপ্রাণ চেষ্টায় মেতে  আছেন এক দল বিশেষ শ্রেনীর মানুষ। অনলাইনে আয় করা যায় এমন বিশেষ  মন- ভুলানো বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হয়ে অনেক বন্ধুরায় প্রতারণার স্বীকার হচ্ছেন। কেউবা আবার বর্তমানে এই ক্ষেত্রটিকে (আউটসোর্সিং) সদ্য সমালোচিত এমএলএম ব্যাবসার সাথে গুলিয়ে ফেলছেন। তাহলে প্রশ্ন  হলো আউটসোর্সিং আসলে কি ?

( সহজ উপায়ে অনলাইনে টাকা আয় এই বিষয়গুলো জানা একান্ত দরকার।)

আউটসোর্সিং  এর অতীত  এবং বর্তমান।

শব্দটি আমাদের দেশে যে খুব বেশি জনপ্রিয় কিংবা সবার জানা তা নয়, তবে কিছু অসাধু ব্যাবসায়ী তাদের  লাপটপ বিজ্ঞাপনের বদলে শব্দটি এখন অনেক মানুষের অন্তরে বিভিন্নভাবে কৌতুহলের জন্ম দিয়ে চলছে, এবং ইতিমধ্যে  বাংলাদেশীদের কাছে আউটসোর্সিং শব্দটি অতি পরিচিত  শব্দ হিসাবে পরিচিতি লাভ করতে যাচ্ছে। আবার  আউটসোর্সিং অনেকের কাছে নিন্দিত একটি শব্দ হিসেবে পরিচিতি পাচ্ছে । কিন্তু এরকম তো কোনভাবেই হওয়ার কথা  ছিল না।  ৭ -৮ বছর পিছনে বাংলাদেশের লোকজন এই শব্দটির সাথে পরিচিত ছিল না বললে ভুল হবে না। সেই সময়ও কিন্তু আউটসোর্সিং এর কাজ হতো, কিন্তু  এখন-কার মত কাজের অবস্থা ছিল না। প্রতিযোগীতা মূলক এবং পরিবর্তনশীল বিশ্বায়নের এই যুগে আমরা লক্ষ্য করছি তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোতে আর্থ-সামাজিক অস্থিরতার কারণে অর্থনৈতিক বৈষম্য দিনের পর দিন বেড়েই চলছে এবং ব্যবস্থাপনা-হীনতার কারণে বেকার সমস্যা বাড়ছে প্রতি সেকেন্ডে। বাংলাদেশ  অংশে আরো বেশি । যার কারণে আমারদের দেশের বেকার যুবক যুবতীদের পাশাপাশি কম আয়ের মানুষেরা জীবনের প্রয়োজনে বিকল্প আয়ের পথ খুজছে। এই সুযোগে আউটসোর্সিং শব্দটি আমাদের দেশের মানুষের নিকট অতি দ্রুত পৌঁছেছে বলে আমার ধারণা। আসলে কি – এই আউটসোর্সিং ব্যবস্থার মাধ্যমে এই ধরণের সকল সমস্যার সমাধান সম্ভব ? এর সঠিক উত্তর হল  অনেকাংশেই  সম্ভব। কিন্তু এর পেছনে বিভিন্ন রকমের বিষয়  জড়িত আছে বলে আমরা দ্রুত পরিবর্তন হতে পারছি না । আমাদের বাংলাদেশের এখন, যেখানে যায় না কেন, সেখানেই শোনা যায় এই আউটসোর্সিং এর কথা। আপনাদের নিকট প্রশ্ন কিভাবে “সহজ উপায়ে অনলাইনে আয় করা যায়”?

আউটসোর্সিং কি ?

আউটসোর্সিং বা  ফ্রিল্যান্সিং শব্দের আসল  অর্থ হল একটি স্বাধীন পেশা। অর্থাৎ আউটসোর্সিং বা  ফ্রিল্যান্সিং  হচ্ছে স্বাধীনভাবে কাজ করে অর্থ  আয়ের গুরত্বপুর্ণ পেশা। আরো সহজ ভাবে বলতে গেলে, ইন্টারনেট ব্যাবস্থার মাধ্যমে  ভিন্ন ভিন্ন প্রতিষ্ঠান ভিন্ন ভিন্ন ধরনের কাজ বিভিন্ন  ফ্রিল্যান্সারদের মাধ্যমে তা করিয়ে নেয়। নিজের প্রতিষ্ঠান বাদে অন্য কোন ব্যক্তি অথবা কোন প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে এসব কাজ করানোকেই মূলত আউটসোর্সিং বলা হয়। যারা আউটসোর্সিংয়ের কাজ করেন, মূলত তারাই হলেন ফ্রিল্যান্সার।

আমি কি আউটসোর্সিং নিয়ে ক্যারিয়ার গড়তে পারবো?

খুব সহজে আমরা যদি অনলাইনে হাজার হাজার ডলার/টাকা আয় করতে পারতাম তাহলে দুনিয়ার হাজার হাজার মানুষ শুধুই টাকা আয়ের জন্য ২৪ ঘন্টা পরিশ্রম বন্ধ করে  ঘরে বসে কম্পিউটার আর অনলাইন সংযোগ নিয়ে  আয় করার জন্য কাজ করতো, হাজার হাজার ডলার ইনকাম করত। বড় কথা বাস্তবে অনলাইনে ইনকামের ধারা একটু ভিন্ন। আপনার যদি অনলাইনে কাজ করে অর্থ উপার্জনের যোগ‌্যতা থাকে তাহলে আপনে আউটসোসিং কেন দুনিয়ার সব ক্ষেত্রে আপনে কাজ পাবেন। কিন্তু আউটসোসিং একটু ভিন্নতা আছে। আর তা হলো এখানে কাজ পাবার আর কাজ করার যে স্বাধীনতা আছে তা অন্য  পেশায় না ও পেতে পারেন। তবে সবসময় মনে রাখবেন আউটসোর্সিং একটি স্বাধীন ও মুক্ত পেশা। সেখানে আপনার ব্যক্তিগত জবাবদিহীতার চেয়ে আপনার কাজের জবাবদিহীতা অনেক বেশি।  অফিস কোর্স (২০০৭ বা ২০০৪)বিশেষ করে : Ms word. . বেসিক ইন্টারনেট . সাধারণ ইংরেজি জ্ঞান । কম্পিউটারের সঠিক ব্যবহার আউটসোর্সিং এবং ফ্রিল্যান্সিং কোর্স” টি-তে যে বিষয়গুলার উপর আপনার দক্ষতা থাকা দরকারঃ- ১) ফ্রিল্যান্সিং কি এবং কি কি ধরনের কাজ কি পরিমানে আছে, আপনার জন্য উপযুক্ত কাজ কোনটি? ২) ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য কি কি প্রয়োজন এবং কিভাবে নিজেকে প্রস্তুত করবেন ? ৩) সঠিক ভাবে বিড করার কৌশল, প্রোফাইল ৯০%-১০০% ভাগ কিভাবে সম্পন্ন করবেন ? ৪) odesk.com ও freelancer.com এছাড়া আউটসোর্সিং সাইট এর বিভিন্ন অংশের পরিচিতি। ৫) ওয়েব-সাইট কম্পিটিটর এনালাইসিস এবং গুগোল এডসেন্সের মাধ্যমে আয়ের উপায় কি ? ৬) ওয়েব ডেভলপমেন্ট, গ্রাফিক্স, লোগো ডিজানিং, ইমেজএডিটিং এর মধ্যামে আয়ের উপায় কি ? ৭) আপনার প্রোফাইল এর পোর্টফোলিও পেজটি কিভাবে পরিপুর্ন করবেন ? ৮) ব্লগস্পট সাইটে কিভাবে আয় করবেন ? ৯) কভার লেটারএবং ওয়ার্কসাবমিশন কিভাবে শেখা যায় ?

আউটসোর্সিং কি কি ধরনের কাজ পাওয়া যায়?

আরো বেশ সুবিধা আছে, তা হলো হল আপনার কাজের সঠিক মূল্যায়ন এখানে পাবেন এবং একই সাথে উপযুক্ত পারিশ্রমিক পাবেন। অপরদিকে  অন্যান্য পেশায়  প্রতিনিয়ত কর্মকর্তার সঙ্গে বা মালিকদের সাথে মনমালিন‌্য বা কাষাকষি লেগেই থাকে। কিন্তু  আউটসোর্সিং করতে গেলে আপনি এ সমস্যা মুখোমুখি হবেন না। এক কথায় আউটসোর্সিং হলো সহজ উপায়ে ডলার ইনকাম করার একটি স্বাধীন মাধ্যম। আর  সেখানে  সফল হতে হলে, অবশ্যই আপনাকে কাজ শিখে বা দক্ষতা অর্জন করে আসতে হবে এবং কাজ পাবার জন্য আপনাকে উপযুক্ত আউটসোর্সিং মার্কেটপ্লেসে আসতে হবে। আপনার কি নিচের বিষয় গুলো সমন্ধে ধারণা আছে ?

 অনলাইন মার্কেটপ্লেসে আমরা অনেক ধরণের কাজ পাওয়া যেতে পারে।  যেমন: নেটওয়ার্কিং ও তথ্যব্যবস্থা, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, লেখা ও অনুবাদ, ডিজাইন এবং মাল্টিমিডিয়া, প্রশাসনিক সহায়তা, গ্রাহকসেবা বা কাষ্টমার কেয়ার, ব্যবসাসেবা, সফটওয়্যার ,বিক্রয় ও বিপণন ইত্যাদি। এরকম আরো কিছু সহজ কাজ আছে যা আপনে করে দিতে পারলেই অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম আপনার পক্ষে সম্বব। তাছাড়াও বিভিন্ন ধরনের উন্নতমানের কাজের সুযোগ আছে এই বিশাল  আউটসোর্সিং দুনিয়ায়। ১০০% সত‌্য আপনি যদি আপনার কাজের দক্ষতাকে ভালভাবে কাজে লাগাতে পারেন তাহলে অবশ‌্যই  হাজার হাজার ডলার ইনকাম করা সম্ভব আপনার দ্বারা।কিন্তু প্রয়োজন  ইনকামের সঠিক দিক নির্দেশনা, এবং যে কাজ করবেন তার সমন্ধে ভালভাবে জ্ঞান অর্জন করা। নিজের কাজের দক্ষতায় নিজেকে উপরের দিকে উঠে যাওয়ার রাস্তা তৈরি করতে পারবেন।সুতারাং আপনাকে যে কাজ দেওয়া হবে সেই কাজ যদি আপনি সঠিক ভাবে সঠিক সময়ের মধ্য আপনার মালিকে বা ক্লায়েন্টকে জমা দিতে পারেন তাহলে সেও কাজ পেয়ে সন্তুষ্ট থাকবে এবং আপনারও আবার  কাজ পাবার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে। আরো সহজ করে যদি বলি আপনি যা জানেন তা দিয়েই কাজ শুরু করতে পারবেন। লেখা লেখি, ডেটা এন্ট্রি, প্রোগ্রামিং, মার্কেটিং, টাইপিং, ডিজাইনিং, ইমেজ এডিটিং, প্রেজেন্টেশন তৈরি, ডেভেলপমেন্ট, ভার্চুয়াল এসিস্ট্যান্ট সহ অনেক কিছু। কাজের অভাব নেই। তবে আপনার  কাজ জানা এবং সময়ের যথেষ্ট দরকার। তাই অনুরোধ করবো  রাতারাতি বড়লোক  হওয়ার আশায় ভুল লাইনে  পা দিবেন না। এছাড়া বিভিন্ন শিক্ষামুলক পোষ্ট দেখতে এখানে ক্লিক করুন। বিভিন্ন প্রশ্ন দেখতে ও প্রশ্ন করতে এখানে ক্লিক করুন। আমাদের ফেসবুক পেজ দেখতে এখানে ক্লিক করুন। if you to see or looking video so follow this bellow link সহজ উপায়ে অনলাইনে টাকা আয় করতে চাইলে এই বিষয়গুলো জানা একান্ত দরকার। (ভিডিওসহ)